করাত কিংবা আগুনের দাঁতে জ্বলবার আগে, আমাদের এই খড়িদেহ জীবনে আরেকবার প্রাণের আগমন বা অংকুরোদগম দেখতে চায়। হাতুড়ি বাটালি পেরেকের ঘা সয়ে সয়ে রূপকাঠেরা আরেকবার লতিয়ে উঠতে চায় পত্রপল্লবে। বলা যায়, মরা গাছের ছায়া কেটে কেটে, আগাগোড়া এসবের টুকরা-টাকরা দিয়েই তৈরি হয়েছে এই রূপ-মরমিয়া। ভাস্কর্য নামে-রূপে শিল্পী নাছির আহাম্মদের এই মনমুকুর।রিফ্লেকশান অব মাইন্ড। সেই চাওয়ার কিম্বা শিল্পভাষার এই এক আয়নাÑ যেখানে মনকে ব্রতী হতে হয়েছে প্রকৃতিঅঙ্গের খুব সহজ সাধারণ স্বাভাবিক সামান্য প্রাণে। গায়ে-গতরে এ সবেরই নিবিড় অংকুরোদগমে।   যেখানে সিমিলি বা সাদৃশ্য, ইমিটেশন বা অনুকৃতির, কারু কিম্বা ক্রাফটসম্যানশিপের কোনো প্রকরণের আদলে সে আর বন্দিথাকতে চায় না। বরং ছিন্নকাঠের রন্ধ্রে-বাঁকে লুকানো ‘উলানবতী’ ‘মেঘবতী’ ‘ঐরাবতী’ ‘প্রাণহংস’রা যেনো তার অস্তিত্ব মেলে ধরতে চায় সবখানে। একটা পুষ্পসম্ভবা ‘অন্তর্বতœী’ কোরক খুব নিভৃতে যেখানে তার অস্তিত্বের পরম প্রতিরোধ গড়ে তুলতে চায়। ঝরে যেতে চায় না বলেই শেষ পর্যন্ত আপনবোঁটায় থাকবার আপ্রাণ ইচ্ছার কথাটাই যেনো বলতে চায় একটা ছোটো ফুলের জীবন। ঝরবার আগে, আরো ফুটবার আগে, ওকে ছিঁড়ে নেবার দানবিক ইচ্ছারীতিগুলি যেনো আজ প্রশ্নবিদ্ধ হয়! দূর হয়! মন-মকুরের মরমিয়ার সকল আনন্দসুখ, ইচ্ছাটা, চাওয়াটা এখানেই! এমনই! প্রাণে প্রাণ।।
– কফিল আহমেদ 
কবি ও সংগীত শিল্পী
নভেম্বর ২০১৭, ঢাকা

 

Mystery of Innocence : The Tales of Leaves on Woods

Before being consumed by fire or saw, once again this stalked-body we have wants to see the germination or the spring of life. Putting up with the continuous striking of chisel, hammer and nails, once again the beauty of form wants to creep up and spread its leaves. In other words, cutting down the shadows of the trees that are dead and by using the debris thereof we have this mystery of form, in the form and name of sculpture, the mystery of innocence of artist Khandkar Nasir Ahammed. It’s the desire to see the reflection of mind or the mirror of artistic expression– where the mind is devoted to the most primary and universal life of nature. It’s where the similes, imitation or craftsmanship refuses to be imprisoned by any fixed variety. Rather the debris of wood-cuts simultaneously hides-and-shows all the “Ulanboti”, “Meghboti”, “Oiraboti” and “Pran-Hangsa” everywhere. It’s where the pregnant bud wants to barricade its existence in utmost seclusion. A little flower that wants to speak of its utmost desire to stay connected with its stem, until it’s dropped out. Before being dropped out, before being bloomed further, the demonic intentions to pluck it out seem to be questioned here. Eliminate here. Here lies all the desire and happiness of the Mystery of Innocence, as such, within us. Pran-e-Pran!!
Kafil Ahmed
Poet and Singer
November, 2017, Dhaka.

%d bloggers like this: